ডমিঙ্গো এখন আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচকদের একজন। কোচ হিসেবে বড় ভুমিকা রাখার সুযোগ আছে একাদশ নির্বাচনেও। তবে আপাতত সেই দায়িত্বের চর্চা করতে চান না রাসেল ডমিঙ্গো। বাংলাদেশের নতুন কোচ ভরসা রাখছেন অধিনায়ক ও নির্বাচকদের ওপর। পরবর্তীতে অবস্থা বুঝে তিনি নেবেন নিজের ব্যবস্থা।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ কোচ হিসেবে ডমিঙ্গোর অভিযান। টেস্ট কড়া নাড়ছে দুয়ারে, একাদশ নির্বাচন নিয়ে আলোচনাও অনেকটা এগিয়ে যাওয়া কথা।

তবে সেই আলোচনায় ডমিঙ্গো আপাতত পালন করছেন পর্যবেক্ষকের ভূমিকা। মঙ্গলবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে কোচ জানালেন, তিনি মুখিয়ে আছেন দলকে মাঠে দেখতে।

“বাংলাদেশের দায়িত্বে এটিই আমার প্রথম ম্যাচ। দল কেমন পারফর্ম করে, দেখতে মুখিয়ে আছি আমি। গত কয়েকটি টেস্ট ম্যাচে কার্যকর হয়েছে, এমন একটি সিস্টেমে আচমকাই আমূল পরিবর্তন আনা কঠিন।”

“দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে তাই আপাতত আমি পেছন থেকেই দেখছি। নির্বাচকরা ও সাকিব (অধিনায়ক) আমাকে তাদের ভাবনার কথা জানিয়েছে। তাদের পথে এগোতে আমার কোনো সমস্যা নেই। নিজের ভাবনা জুড়ে দেওয়ার আগে আমি দেখতে চাই এটা কিভাবে কাজ করে।”

দায়িত্বের প্রথম ম্যাচের আগে দলের প্রস্তুতিতে দারুণ সন্তুষ্ট নতুন কোচ। সপ্তাহ দুয়েক হলো তিনি যোগ দিয়েছেন দলের সঙ্গে। প্রস্তুতি ক্যাম্পে ক্রিকেটারদের একাগ্রতা তাকে মুগ্ধ করেছে। আফগানদের হালকা ভাবে না নেওয়ার মানসিকতার ছাপও তিনি দেখেছেন সেই প্রস্তুতিতেই।

“দুই সপ্তাহ হলো এখানে এসেছি। যা দেখেছি, তাতে আমি রোমাঞ্চিত। ছেলেরা গত দুই সপ্তাহে অবিশ্বাস্যরকম কঠিন ট্রেনিং করেছে। আমি খুবই সন্তুষ্ট। ওদের প্রাণশক্তি, মানসিকতা, ওয়ার্ক এথিক দুর্দান্ত। আমি খুবই খুশি।”

“আগেও আমি আন্তর্জাতিক দলের সঙ্গে কাজ করেছি। গত দুই সপ্তাহে যে প্রস্তুতি দেখেছি, আমার দেখা সবচেয়ে ভালো প্রস্তুতিগুলির মধ্যেই থাকবে তা। এটাই বলে দিচ্ছে আত্মতুষ্টির জায়গা এখানে নেই। আফগানিস্তানে বেশ কয়েকজন ম্যাচ উইনার আছে। আমাদেরকে খুব ভালো খেলতে হবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here